আপনার জানার ও বিনোদনের ঠিকানা

সিলেট অঞ্চলে বন্যা: পানিবন্দি সাড়ে ১৩ লাখ মানুষ

ঠিকানা টিভি ডট প্রেস: বিরামহীন প্রবল বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলে সিলেট অঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। সুরমা, কুশিয়ারা, সারি নদীর পানি ৬ টি পয়েন্টে বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে সুরমা ও কুশয়ারা অববাহিকার অন্তত সাড়ে ১৩ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। তাদের মধ্যে আশ্রয়কেন্দ্রে ঠাঁই নিয়েছেন অন্তত ৩০ হাজার মানুষ৷ সিলেট ও সুনামগঞ্জ শহরের অর্ধেকের বেশি বাসা-বাড়ির নিচতলা পানিতে তলিয়ে গেছে।’

শহর থেকে শুরু করে গ্রাম সর্বত্রই পানি। ঈদুল আজহার আগের রাত থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি থামছেই না। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, সিলেট অঞ্চলে আরও ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে। এতে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটে ২০২২ সালের বন্যার পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে বলে আশংকা করছে এলাকাবাসী।

সিলেট জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সিলেটের ১৩ উপজেলায় ৭ লাখ, সুনামগঞ্জের ৪ উপজেলায় সাড়ে চার লাখ ও হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজারসহ অন্যান্য এলাকায় ২ লাখ মিলে সাড়ে ১৩ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

পানিবন্দি এলাকার মানুষজন নিরুপায় হয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে যাচ্ছেন। বন্যা দুর্গত এলাকায় চরম জনদুর্ভোগ বিরাজ করছে। সেখানে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও খাবারের সংকট দেখা দিয়েছে।

সিলেট সিটিতে অর্ধলক্ষ মানুষ পানিবন্দি:

সিলেট মহানগরীর ২১ টি ওয়ার্ডে অর্ধলক্ষ মানুষ এখন পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সিলেট জেলা ও মহানগর মিলিয়ে ৬২৭টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এর মধ্যে মহানগরে ৮০টি। এসব আশ্রয়কেন্দ্রে ১৭ হাজার ২৮৫ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। সিলেট মহানগরের শাহজালাল উপশহর, যতরপুর, মেন্দিবাগ, শিবগঞ্জ, রায়নগর, সোবহানীঘাট, কালিঘাট, কামালগড়, মাছিমপুর, তালতলা, জামতলা, কাজিরবাজার, মাদিনা মার্কেট, আখালিয়া, মেজরটিলা ও দক্ষিণ সুরমার লাউয়াই, বরইকান্দি, আলমপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় অনেকের বাসাবাড়িতে গলা পর্যন্ত পানি। নিচু এলাকার বাসা-বাড়ি প্রায় পুরোটাই তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে। গত ২৭ মে সিলেটে আগাম বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ঈদের দিন ভোররাত থেকে সিলেটে শুরু হয় ভারী বর্ষণ। সঙ্গে নামে পাহাড়ি ঢল। ফলে হু হু করে বাড়তে থাকে সিলেটের সব নদ-নদীর পানি।

সিলেট সদর, গোয়াইনঘাট, কোমপানীগঞ্জ ও জৈন্তাপুরসহ কয়েকটি উপজেলার রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। অনেক কৃষিজমির ফসল তলিয়ে গেছে, ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। দুর্যোগ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. মুহিবুর রহমান এমপি সিলেটের বন্যার্তদের জন্য তাৎক্ষনিকভাবে নগদ ১০ লাখ টাকা, ১০০ টন চাল, ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেছেন।

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় প্রধান প্রধান পর্যটনকেন্দ্রগুলো দ্বিতীয় দফায় বন্ধ ঘোষণা করা হয় মঙ্গলবার দুপুরে। এর আগে গত ৩০ মে বন্যা পরিস্থিতির কারণে পর্যটনকেন্দ্রগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়। পরে অবস্থার উন্নতি হলে ও ঈদকে সামনে রেখে পর্যটন কেন্দ্রগুলো খুলে দেওয়া হয়।

সুনামগঞ্জে বন্যা: এদিকে সুনামগঞ্জ জেলা শহরের বিভিন্ন সড়কসহ অর্ধেকের বেশি বাড়ি পানিতে ডুবে গেছে। বুধবার বিকালে বৃষ্টি থামলেও সার্বিক পরিস্থিতির উন্নতি নেই। অনেকেই নিরাপদ আশ্রয়ে গেছেন। আবার অনেকেই ঘরের খাট-পালং উঁচু করে পানির মধ্যেই বসবাস করছেন। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকেছে। মধ্য বাজারে হাঁটু পানি। বাধন পাড়া, উকিল পাড়া, বড় পাড়া, সোমপাড়া, হাসন্নগর, ষোলঘর, নবীনগরসহ বহু এলাকা পানিতে নিমজ্জমান। জেলার মধ্যনগর, ছাতক, দোয়ারা, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর ও সদর উপজেলার অবস্থা ভয়াবহ।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে, উজানে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হবে। সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী জানিয়েছেন, বন্যা মোকাবিলায় সুনামগঞ্জ জেলায় ৫১৬টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।’

হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জে খোয়াই নদীতে বাঁধে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। বুধবার দুপুরে শহরতলীর জালালাবাদে নদীর বাঁধে হঠাৎ ভাঙ্গন দেখা দেয়। ফলে প্রবল বেগে নদীর পানি জালালাবাদসহ আশপাশের এলাকায় প্রবেশ করছে। এদিকে সকাল থেকেই খোয়াই, কুশিয়ারা, কালনী নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) হাকালুকি হাওরের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। বড়লেখা উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের ২৫২ গ্রাম বন্যা কবলিত। ডুবে গেছে বাড়িঘর, রাস্তাঘাট ও ফসলের মাঠ। এতে প্রায় ১ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

নেত্রকোণা: প্রধান প্রধান নদীর পানি দ্রুত বেগে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতিমধ্যে কলমাকান্দা উপজেলার উপদাখালি নদীর পানি বিপদসীমার ৩৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কলমাকান্দার গুরুত্বপূর্ণ মনতলা সড়ক তলিয়ে গেছে।

এদিকে, টানা ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে উত্তরাঞ্চলের নদ-নদীর পানি বাড়ছে। কয়েকটি স্থানে তিস্তাসহ প্রধান নদ-নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে প্রবাহিত হচ্ছে। আগামী কয়েক দিন অবিরাম বর্ষণের সম্ভাবনা থাকায় রংপুর, নীলফামারী, গাইবান্ধা ও কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতি তৈরির আশঙ্কা করা হচ্ছে।’

Facebook
Twitter
WhatsApp
Pinterest
Telegram

এই খবরও একই রকমের

সেতু ভেঙে বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস খালে, নিহত ১০ 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়ন ও চাওড়া ইউনিয়নের সঙ্গে একটি ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ ভেঙে বরযাত্রীবাহী দুটি গাড়ি খালে পড়ে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার

ওয়াজ মাহফিল সরকারিভাবে মনিটরিংয়ের অনুরোধ’

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে যেসব ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হচ্ছে সেগুলো সরকারিভাবে মনিটরিং করতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন আলিয়া ধারার মাদ্রাসা প্রধানরা। তারা বলছেন, সারা দেশে প্রায়

কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে ৮৯ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার ২

মোঃ সম্রাট আলী কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: র‌্যাব-১২ কুষ্টিয়া অভিযান চালিয়ে দৌলতপুর উপজেলার মহিষকুন্ডি ইউনিয়নের পাকুরিয়া গ্রাম থেকে ৮৯ বোতল আমদানী নিষিদ্ধ ভারতীয় ফেনসিডিলসহ ২ জন মাদক

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে অভিযান চালিয়ে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ দুইজন আটক

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের তাড়াশে অভিযান চালিয়ে ২১৬ কেজি গাঁজাসহ দুইজনকে আটক করা হয়েছে। এসময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি কাভার্ড ভ্যান জব্দ করা হয়েছে। শুক্রবার ভোরে

একদা ক্ষমতাবান, এখন অপাংক্তেয়

নিজস্ব প্রতিবেদক: এক সময় তারা প্রচণ্ড ক্ষমতাবান ছিলেন। তাদের কথায় অনেক কিছুই হতো। আওয়ামী লীগে তাদেরকে অত্যন্ত সমীহ করে চলা হত। এমনকি বড় বড় নেতারাও

৩৫ কোটি পাঠ্যবই ছাপানোর কাজ আবারও হাতিয়ে নিচ্ছে একই চক্র

নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী শিক্ষাবর্ষের জন্য এবার প্রথম থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রায় ৩৫ কোটি কপি পাঠ্যবই ছাপানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড