আজ বৃহস্পতিবার ,৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি (হেমন্তকাল)

দুপুর ১২:৩৮

মুহাম্মাদ সা. কে নিয়ে কটুক্তি করায় বহির্বিশ্বে নিন্দার ঝড়

মুসলমান হৃদয়ের মনিকোঠায় মুহাম্মাদ সা. উনাকে নিয়ে ‘বিতর্কিত মন্তব্য করেন ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির নেত্রী নুপুর শর্মা। তার সেই মন্তব্যের ভিডিও ভাইরাল হতেই দেশ বিদেশে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এরই মধ্যে কয়েকটি দেশ ভারতীয় রাষ্ট্রদূতদের ডেকে এ ব্যাপারে নিন্দা জানিয়েছে। খবর হিন্দুস্তান টাইমস, এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।

জানা গেছে, সম্প্রতি একটি তথ্য যাচাইকারী (ফ্যাক্টচেক) ওয়েবসাইটে বিজেপির সাবেক মুখপাত্র নুপুর শর্মার একটি ভিডিও টুইট করা হয়। ওই ভিডিওতে জ্ঞানবাপী মসজিদ নিয়ে আলোচনার এক পর্যায়ে নুপূর শর্মা মহানবীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন বলে দাবি করা হয়। ভিডিওতে দেখা যায়, একটি প্রাইমটাইম নিউজ শো চলাকালে বিজেপির মুখপাত্র নুপুর শর্মা মহানবীকে সম্বোধন করে অপমানজনক বক্তব্য উচ্চারণ করেন। এরপর বিষয়টি নিয়ে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়।

এমনকি, এক পর্যায়ে নুপুরকে দল থেকে সাসপেন্ড করে বিজেপি। গতকাল রোববার সকালে এক বিবৃতি প্রকাশ করে বিজেপির পক্ষ থেকে জানানো হয়, কোনো ধর্মীয় ভাবাবেগকে আঘাত করে মন্তব্য করা সমর্থন করে না বিজেপি। পরে বিকেলে নুপুর শর্মাকে সাসপেন্ডের খবর জানায় দলটি। বিষয়টি নিয়ে কয়েকটি স্থানে নুপুরের বিরুদ্ধে মামলাও করা হয়।

জানা গেছে, একই ধরনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে দলের মুখপাত্র নবীনকুমার জিন্দলকেও দলের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে বহিষ্কার করেছে বিজেপি। গত ১ জুন তিনি তার অফিসিয়াল টুইটার পেজ থেকে মহানবীর (সা.) বিরুদ্ধে টুইট করেন।

এদিকে, এ ঘটনার জেরে দেশের পাশাপাশি বহির্বিশ্বেও নিন্দার ঝড় ওঠে। কাতার, কুয়েত, ইরানসহ বিভিন্ন দেশ ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে তলব করে। পাকিস্তানও এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। ঘটনার পর কয়েকদিন পেরিয়ে গেলেও ভারত সরকার কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় নিন্দা জানানো হয়। বিভিন্ন দেশের সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারতীয় পণ্য নিষিদ্ধ করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

কাতার বলেছে, এ ধরনের মন্তব্যকে শাস্তি ছাড়াই চলতে দেওয়া মানবাধিকার রক্ষার জন্য একটি গুরুতর বিপদ তৈরি করে। এটি দেশ ও পরিস্থিতিকে আরো কুসংস্কার ও প্রান্তিকতার দিকে নিয়ে যেতে পারে, যা ক্রমেই সহিংসতা ও ঘৃণার চক্র তৈরি করবে। কুয়েত নুপুরের বক্তব্যের জন্য সর্বজনীন ক্ষমা চাওয়ার দাবি করে বলেছে, এর ধারাবাহিকতা সমাজে চরমপন্থা ও ঘৃণা বৃদ্ধি করবে। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তেহরানে ভারতের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে।

তীব্র নিন্দা জানিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ বলেন, আমাদের প্রিয় নবী (সা.) সম্পর্কে ভারতের বিজেপি নেতার এ ধরনের অপমানজনক মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। মহানবী (সা.)-এর প্রতি আমাদের ভালোবাসা সর্বোচ্চ। সকল মুসলমান তার ভালোবাসা ও সম্মানের জন্য তাদের জীবন উৎসর্গ করতে পারে।

এসব ক্ষেত্রে নয়াদিল্লির পক্ষ থেকে বলা হয়, নুপুর শর্মার মন্তব্য ভারত সরকারের মতাদর্শ নয়। যারা সেই অবমাননাকর মন্তব্য করেছিলেন, তাদের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এদিকে, ইন্টারনেটে ‘বয়কট ইন্ডিয়া’র ডাক দেওয়া শুরু হয়েছে। ওমানের গ্র্যান্ড মুফতি প্রথমে এ বয়কটের ডাক দেন।

 

সর্বশেষ খবরঃ

আপনার জন্য আরো খবর

উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে