আপনার জানার ও বিনোদনের ঠিকানা

‘ব্যবসায়ীদের দাপটে ক্ষমতাকেন্দ্রে কোণঠাসা আমলারা’

নিজস্ব প্রতিবেদক: দ্বাদশ জাতীয় সংসদের অধিবেশন শুরু হয়েছে। গত ১১ জানুয়ারি গঠিত হয়েছে নতুন মন্ত্রিসভা। জাতীয় সংসদে এবার যারা নির্বাচিত হয়েছেন, তাদের প্রায় শতকরা ৯০ ভাগই ব্যবসায়ী। কোটিপতির সংখ্যা অনেক বেশি। সুশাসনের জন্য নাগরিক যে জরিপ করেছে তাতে দেখা যাচ্ছে, ৯৪ শতাংশ সদস্যই ব্যবসায়ী। আর অন্যদিকে আমলাদের সংখ্যা হাতে গোনা কয়েকজন। কিন্তু অন্যান্য সময় দেখা যায় সংসদে ব্যবসায়ীদের সংখ্যা বেশি থাকলেও আমলারা মন্ত্রিসভায় বা সরকারের নীতি নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা দখল করে থাকেন। অনেক সময় মন্ত্রিসভায় আমলাদের দাপট না থাকলেও ক্ষমতাকেন্দ্রে তারা থাকেন।

২০০৯ সালের পর থেকেই আমলারা ক্ষমতাকেন্দ্রের নিয়ন্ত্রক শক্তি হিসেবে কাজ করছে। ২০০৮ সালের নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ যখন সরকার গঠন করে তখন সরকারের দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি ছিলেন এইচ টি ইমাম। তিনি প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রশাসন উপদেষ্টা হলেও বাস্তবে তিনি ক্ষমতাকেন্দ্রের দ্বিতীয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছিলেন।’

২০১৪ সালের নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগের সরকারটি একটি রাজনৈতিক সরকার হিসেবে আবির্ভূত হয়। তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু, মোহাম্মদ নাসিমের মতো হেভিওয়েট নেতারা সেই সময় আওয়ামী লীগের মন্ত্রিসভায় জায়গা পেয়েছিলেন। আমলাদের প্রভাব ক্ষমতাকেন্দ্রে কিছুটা কমেছিল বটে কিন্তু আবুল কালাম আজাদ এবং সাজ্জাদুল হাসানের মতো আমলাদের কারণে সেই সময়ও আমলাদের একটা নিশ্চিত প্রভাব বলয় ছিল।

২০১৮ সালের মন্ত্রিসভা গঠিত হওয়ার পর পুরোপুরিভাবে আমলাতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হয়েছিল। আমলারাই ছিল ক্ষমতার কেন্দ্রে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস এর প্রভাব বেড়েছিল। এই সময় আমলাদের প্রভাব এতটাই পারে যে জেলার দায়িত্ব সচিবদেরকে দেওয়া হয়েছিল। যদিও বলা হয়, করোনার বিশেষ পরিস্থিতির কারণে এটি করা হয়েছিল। কিন্তু এটি আমলাদের ক্ষমতা কেন্দ্র দখলের একটি উদাহরণ মাত্র। তবে এবার সরকারের নীতি নির্ধারকে আমলাদের অবস্থান খুবই দুর্বল। আমলাদের চেয়ে ব্যবসায়ীদের প্রভাব প্রতিপত্তি বেড়েছে।’

গত কয়েক বছর ধরেই প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান সরকারের নীতি নির্ধারণীতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। এবার নির্বাচনে যেমন মনোনয়ন পেয়েছেন অনেক বেশি ব্যবসায়ীরা তেমনই মন্ত্রিসভাতেও ব্যবসায়ীদের প্রভাব প্রতিপত্তি আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় এখন ব্যবসায়ীদের দখলে। তাছাড়া সরকারের অনেক নীতিনির্ধারণী ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের প্রভাব বেড়েছে আমলাদের চেয়ে। আর এর কারণেই অনেকে মনে করছেন, ব্যবসায়ীরা এখন ক্ষমতাকেন্দ্রের চারপাশ ঘিরে ফেলেছেন। আর তাদের কারণে আমলারা কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন।

অন্যসময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মূখ্যসচিব বা মন্ত্রিপরিষদ সচিবের যে প্রভাব এবং ক্ষমতাকেন্দ্রে তার যে দৃশ্যমান উপস্থিতি লক্ষ্য করা যেত সেটি এখন অনেকটাই ম্লান হয়ে গেছে। বরং ক্ষমতাকেন্দ্রের চারপাশে প্রভাবশীল ব্যবসায়ীদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাহলে কি আমলাতন্ত্রের অবসান ঘটতে যাচ্ছে? অবশ্য রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা এমনটি মনে করেন না। তারা বলছেন, আমলারা সবসময় কোণঠাসা অবস্থা থেকে ক্ষমতা বৃত্তে জায়গা করে নেন। এখন সরকার কেবল গঠিত হয়েছে। সামনের দিনগুলোতে আমলাদের প্রভাব প্রতিপত্তি দুটোই বাড়বে।’

Facebook
Twitter
WhatsApp
Pinterest
Telegram

এই খবরও একই রকমের

হঠাৎ করে উধাও হচ্ছে টুইটার অ্যাকাউন্ট’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মার্কিন প্রযুক্তি উদ্যোক্তা ইলন মাস্কের হাতে যাওয়ার পরই টুইটারে আসছে নানা পরিবর্তন। এরপর থেকেই কমছে টুইটারের ব্যবহারকারীর সংখ্যা। উধাও হচ্ছে বেশকিছু অ্যাকাউন্ট। ভুয়া

বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া ওয়াটার বাস উদ্ধার, মৃত ৪

নিজস্ব প্রতিনিধি বুড়িগঙ্গায় বাল্কহেডের ধাক্কায় অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে ডুবে যাওয়া ওয়াটার বাস উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার (১৭ জুলােই) সকাল পৌনে ১০টার দিকে ওয়াটার বাসটি পানির

কদরে আল আকসায় ২ লাখ মুসল্লির নামাজ আদায়’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পবিত্র রমজান মাসের শেষ শুক্রবার ও পবিত্র কদরের রাতে ইসরায়েলের বিভিন্ন কঠোর নিরাপত্তা বিধিনিষেধ ও বিপুল সেনা মোতায়েন সত্ত্বেও আল আকসা মসজিদে প্রায়

প্রতারক সব ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিবি

ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জের মতো গ্রাহকদের সাথে প্রতারণা করা সব ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার ডিবিপ্রধান

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিয়েতে দই নিয়ে সংঘর্ষ, কনের বাবার মৃত্যু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের গণকমোড়া গ্রামে এক বিয়ের অনুষ্ঠানে টক দই দেওয়াকে কেন্দ্র করে শুরু হয় বর ও কনেপক্ষের হাতাহাতি। পরে এর জের ধরে

যশোরসহ সারাদেশে হাইস্কুলে পা দিয়েই ঝরে পড়েছে পাঁচ লক্ষাধিক শিক্ষার্থী

জেমস আব্দুর রহিম রানা: যশোরসহ সারাদেশে মাধ্যমিক পর্যায়ে উদ্বেগজনকভাবে শিক্ষার্থী ঝরে পড়ছে। দুই বছরে মাধ্যমিক পরীক্ষা দেয়ার আগেই ঝরে পড়েছে পাঁচ লাখ ৩৪ হাজার ৪৩৭