আপনার জানার ও বিনোদনের ঠিকানা

‘বছরে ৩০ লাখ টন ই-বর্জ্য, বিপাকে বাংলাদেশ’

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্বের উন্নয়রে সাথে তাল মেলাতে গত দু্ই দশকে দেশের মানুষের জীবনের সঙ্গে ওতপ্রত ভাবে যুক্ত হয়ে গেছে মোবাইলসহ ইলেকট্রনিক নানা পণ্য। সেই পণ্য থেকে সৃষ্ট বর্জ্যই এখন মাথা ব্যথার কারণ।

জানা গেছে, বাংলাদেশে বছরে সৃষ্টি হচ্ছে ৩০ লাখ টন ই-বর্জ্য, যা হুমকিতে ফেলেছে দেশের জীববৈচিত্র্যকে। তথ্য বলছে, ই-বর্জ্যে সিসা, পারদ, তামা, ক্যাডমিয়াম, ক্রোমিয়াম, আর্সেনিকসহ নানা ক্ষতিকর ভারীর পাশাপাশি রয়েছে সোনা, রুপাসহ নানা মূল্যবান ধাতু। ১ কোটি টন ই-বর্জ্য রিসাইকেল করে প্রায় ১ হাজার ৩০০ কোটি ডলার আয় করা সম্ভব। কিন্তু এগুলো সংগ্রহ ও রিসাইকেলের প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো গড়ে না ওঠায় তা ছড়িয়ে পড়ছে পরিবেশে। ফলে শুধু সম্পদই নষ্ট হচ্ছে না, ক্ষতিকর ভারী ধাতু ও রাসায়নিক দূষিত করছে মাটি, পানি ও বায়ু। ছড়াচ্ছে ক্ষতিকর রেডিয়েশন। বাড়াচ্ছে ফুসফুস ক্যান্সারসহ কিডনি, যকৃত, স্নায়ুতন্ত্র, হৃৎপিসহ মস্তিষ্কের নানা রোগ।

এদিকে ই-বর্জ্যরে ঝুঁকি কমাতে সরকার ২০২১ সালে ‘ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিধিমালা’ তৈরি করলেও দুই বছরে তার বাস্তব প্রয়োগ নেই। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অধিকাংশ বর্জ্যরে শেষ গন্তব্য আমিনবাজার ল্যান্ডফিল্ড। তিন পাশে নদীবেষ্টিত ল্যান্ডফিল্ডে জৈব বর্জ্যরে সঙ্গে প্লাস্টিক ও ই-বর্জ্যও জমা হয়। আর ল্যান্ডফিল্ডের বর্জ্য থেকে নিষ্কাশিত বিষাক্ত পানি সরাসরি মেশে নদীর পানিতে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমিনবাজার ল্যান্ডফিল্ড থেকে সংগৃহীত পানির স্যাম্পলে লেডের পরিমাণ পাওয়া গেছে ৮.৯৪ পিপিএম, যা নির্ধারিত গাইডলাইন থেকে প্রায় ৯০ গুণ বেশি। ক্যাডমিয়াম ও পারদের উপস্থিতিও নির্ধারিত গাইডলাইন থেকে অনেক বেশি। এই পানি নদীতে পড়লে তা মানুষসহ নদীর জীববৈচিত্র্যের জন্য হুমকি। ভূগর্ভস্থ পানিতে মেশার বড় সুযোগ রয়েছে, যার পরিণতি হবে মারাত্মক।

তথ্যানুযায়ী, দেশে ইলেকট্রনিক পণ্যের বাজার গত এক দশকে তিন গুণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ কোটি টাকায়। এসব ইলেকট্রনিক পণ্য থেকে বছরে সৃষ্টি হচ্ছে প্রায় ৩০ লাখ টন ই-বর্জ্য। গত জুনে এক অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধে কানাডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের স্কুল অব সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ডিন অধ্যাপক ড. সৈয়দ আখতার হোসেন জানান, প্রতি বছর দেশে নষ্ট হচ্ছে প্রায় ২ লাখ ৯৬ হাজার ৩০২টি টেলিভিশন। এ থেকে সৃষ্টি হচ্ছে প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার টন ই-বর্জ্য। নষ্ট বা মডেল পরিবর্তন করতে গিয়ে বাতিল হচ্ছে কয়েক কোটি মোবাইল ফোন। শুধু স্মার্ট ডিভাইস থেকেই সৃষ্টি হচ্ছে সাড়ে ১০ লাখ টন ই-বর্জ্য। প্রতিদিনই বাতিলের খাতায় যুক্ত হচ্ছে ফ্রিজ, ওভেন, ব্যাটারি, কম্পিউটার, সোলার প্যানেল, চার্জারসহ অগণিত ইলেকট্রনিক পণ্য। প্রতি বছর এই বর্জ্য বাড়ছে ৩০ শতাংশ হারে। ২০১৮ সালে পরিবেশ অধিদফতরের প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশে উৎপাদিত ই-বর্জ্যরে ৩ ভাগ রিসাইক্লিং হয়, ৯৭ শতাংশের ঠাঁই হয় ভাগাড়ে।’

এদিকে বিজ্ঞান বিষয়ক জার্নাল সায়েন্স ডিরেক্টরিতে প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, এক টন ওজনের মোবাইল ফোনে অন্য নানা ধাতুর পাশাপাশি রয়েছে ৫৩ কেজি তামা, ১৪১ গ্রাম সোনা, ২৭০ গ্রাম রুপা, ১০ গ্রাম প্লাটিনাম ও ১৮ গ্রাম প্যালাডিয়াম। এক টন পিসিবিতে (প্রিন্টেড সার্কিট বোর্ড) রয়েছে ৬৭৮ গ্রাম সোনা, ১১০০ গ্রাম রুপা, ২৭৮ কেজি তামা, ৩৮ গ্রাম প্লাটিনাম, ৯৮ গ্রাম প্যালাডিয়াম। সুতরাং, এসব ই-বর্জ্য সংগ্রহ করে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে প্রক্রিয়াজাত করতে পারলে পরিবেশ দূষণ রোধের পাশাপাশি আয় করা সম্ভব বিপুল পরিমাণ অর্থ। তবে দেশে তিন-চারটা বর্জ্য রিসাইক্লিং কারখানা গড়ে উঠলেও পর্যাপ্ত কাঁচামালের অভাবে চালাতে পারছে না। বেসরকারি ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা বলছেন, এক কেজি ই-বর্জ্যরে মূল্য এক ডলারেরও বেশি। কিন্তু, এগুলো সংগ্রহের কোনো চেইন সরকারি বা বেসরকারিভাবে গড়ে ওঠেনি। তাই কাঁচামালের অভাব। অপেশাদার পদ্ধতিতে কিছু বর্জ্য সংগৃহীত হয়। সেগুলো থেকে সনাতন অ্যাসিড পদ্ধতি ও বার্নিং পদ্ধতিতে মূল্যবান ধাতু পৃথক করা হয়। এতে পরিবেশ দূষণ হয়। খরচও বেশি। যারা ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে এসব রাসায়নিক দিয়ে স্বর্ণ আলাদা করে, তাদেরও নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়।

ই-বর্জ্য নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্ম কর্মকর্তরা বলছেন, রিসাইক্লিং না হওয়ায় বাংলাদেশে ই-বর্জ্য আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। পরিবেশ অধিদফতর একটা আইন করেছে, তা কোম্পানিগুলোও জানে না, জনগণও জানে না। অন্য কোনো এনজিও বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এটা নিয়ে কথাও বলছে না। বিষয়টা নিয়ে এখনই উদ্যোগ না নিলে বড় ক্ষতি হয়ে যাবার শঙ্কা করছেন তারা।’

Facebook
Twitter
WhatsApp
Pinterest
Telegram

এই খবরও একই রকমের

শীর্ষ সন্ত্রাসী যশোরের হাসান-মিজানের অস্ত্রের ভান্ডার ১৫ বছরেও উদ্ধার হয়নি

জেমস আব্দুর রহিম রানা: দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের শীর্ষ সন্ত্রাসী হাসান- মিজানের মৃত্যুর ১৫ বছর পরও তাদের রেখে যাওয়া অস্ত্রের ভান্ডার উদ্ধার করতে পারেনি প্রশাসন। ওই অস্ত্রগুলো রয়েছে

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত মাদক ব্যবসায়ী বিপুল গ্রেফতার

জেমস আব্দুর রহিম রানা: যশোরের অভয়নগর উপজেলার মাদক ব্যবসায়ী ও যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি বিপ্লব গাজী ওরফে বিপুল হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব সদস্যরা। আটক বিপুল অভয়নগর

হুতিদের জন্য তৈরি ইরানের অস্ত্রের চালান জব্দ: যুক্তরাষ্ট্র’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত সপ্তাহে সোমালিয়ার উপকূলে একটি জাহাজ থেকে ইরানের তৈরি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র এবং ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের উপাদানগুলো জব্দ করেছে মার্কিন নৌবাহিনী। এগুলো ইয়েমেনে হুতিদের জন্য

সিরাজগঞ্জ-৫ আসনে জননন্দিত নেতাকে মনোনয়ন দেয়ার আহ্বান

ভিকে জয়,বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি মেয়রের নির্বাচনী জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (০২ অক্টোবর) বিকালে

চিকিৎসার অভাবে মারা যাওয়া বাবার তিন সন্তানের মেডিকেলে চান্স

ঠিকানা টিভি ডট প্রেস: মাফিউল, সাফিউল এবং রাফিউল। একসাথে বেড়ে উঠা তাদের। শিক্ষা জীবনের শুরুটাও একসঙ্গে। জন্মের প্রায় ৫ বছরের মধ্যেই হৃদ্‌রোগে মারা যান বাবা।

জাপার কেন্দ্রীয় যে ২ নেতাকে অব্যাহতি’

ঠিকানা: জাতীয় পার্টি (জাপা’) থেকে কেন্দ্রীয় দুই নেতাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। অব্যাহতিপ্রাপ্ত দুই নেতা হলেন দলের কো-চেয়ারম্যান কাজী ফিরোজ রশীদ ও প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায়।