আপনার জানার ও বিনোদনের ঠিকানা

অপহৃত জাহাজ উদ্ধারে শান্তিপূর্ণ উপায়েই এগোতে চায় বাংলাদেশ’

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহসহ ২৩ নাবিককে সোমালি জলদস্যুদের হাত থেকে ছাড়াতে শান্তিপূর্ণ সমাধানের পথেই হাঁটছেন জাহাজ মালিকসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। দস্যুরা ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নেভাল ফোর্স ও সোমালিয়ার আঞ্চলিক পুলিশ বাহিনীর ব্যাপক চাপে থাকলেও নাবিক ও জাহাজের নিরাপত্তা নিয়ে বাংলাদেশের সরকার ও জাহাজ মালিকপক্ষ কোনো ধরনের ঝুঁকি নিতে নারাজ।

এরই মধ্যে তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে দস্যুদের সঙ্গে জাহাজ মালিকপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে। সেই ধারা অব্যাহত রেখে জাহাজ ও নাবিকদের মুক্ত করে দেশে ফিরিয়ে আনতে চান মালিক পক্ষসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

সরকারের দায়িত্বশীল মহল থেকেও বলা হয়েছে, যত দ্রুত সম্ভব নাবিকদের মুক্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। জিম্মি নাবিক ও জাহাজের যাতে কোনো ক্ষতি না হয় সেভাবেই কাজ করার চেষ্টা চলছে।

সরকারি সূত্র বলছে, জাহাজের মধ্যে থাকা বিপুল পরিমাণ কয়লা একটি দাহ্য পদার্থ। সেখানে এমন কিছু করা যাবে না যাতে করে দাহ্য পদার্থ হুমকির সম্মুখীন হয়। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এ ব্যাপারে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করছে।

শনিবার (২৩ মার্চ) বিকেলে নাবিকদের সংগঠন বাংলাদেশ মার্চেন্ট মেরিন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ক্যাপ্টেন আনাম চৌধুরী বলেন, ‘এমভি আবদুল্লাহর দিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের যুদ্ধজাহাজ ও হেলিকপ্টার নজর রাখায় জলদস্যুরা মানসিকভাবে চাপে আছে। তবে দস্যু ও মালিকপক্ষের মধ্যে যোগাযোগ করার মধ্য দিয়ে যে সুযোগের দ্বার উন্মোচন হয়েছিল তা অব্যাহত রাখতে হবে। আমরা চাই কোনো অভিযান নয়, শান্তিপূর্ণ সমাধানের মধ্য দিয়ে নাবিকদের অক্ষত অবস্থায় দেশে ফিরিয়ে আনতে। জাহাজটি গত কয়েক দিন যেখানে ছিল এখনো সেখানেই আছ ‘।

জাহাজ মালিক কবির গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এস. আর শিপিংয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মেহেরুল করিম গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে দস্যুরা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়নি। জাহাজ থেকে শুক্রবার নাবিকরা তাঁদের পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছেন। তাঁরা সবাই সুস্থ আছেন’।

জানা গেছে, বাংলাদেশ পক্ষের সমঝোতার মাধ্যমে সংকট সমাধানের আগ্রহ সত্ত্বেও ইউরোপীয়দের নজরদারির পাশাপাশি সোমালিয়ার পান্টল্যান্ডের নুগাল অঞ্চলের পুলিশ বাহিনী দস্যুদের আত্মসমর্পণের জন্য চরমপত্র দিয়েছে।

গতকাল শনিবার (২৩ মার্চ’) ভারতীয় নৌবাহিনীর প্রধান অ্যাডমিরাল আর হরি কুমারকে উদ্ধৃত করে বার্তা সংস্থা ইউএনবি বলেছে, ভারত মহাসাগরে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ইতিবাচক পদক্ষেপ নেবে ভারতীয় নৌবাহিনী। গাল্ফ অব এডেনে ভারতীয় নৌবাহিনীর অভিযান নিয়ে কথা বলার সময় তিনি এই বার্তা দেন।

অপহৃত বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘জাহাজটির বিষয়ে নজর রাখছে ভারতীয় নৌবাহিনী।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের নামে ভারত মহাসাগরের নামকরণ হয়েছে। আমরা ব্যবস্থা না নিলে, আর কে নেবে।’

প্রসঙ্গত, আফ্রিকার দেশ মোজাম্বিক থেকে ৫৫ হাজার টন কয়লা নিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত যাওয়ার পথে গত ১২ মার্চ ভারত মহাসাগরে সোমালি জলদস্যুদের কবলে পড়ে বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ। তখন থেকে চার দফা স্থান পরিবর্তন করে জাহাজটি এখন সোমালিয়ার সাগরসৈকত থেকে পৌনে তিন কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে।’

Facebook
Twitter
WhatsApp
Pinterest
Telegram

এই খবরও একই রকমের

হস্তান্তরের আগেই খসে পড়ছে ৯ কোটির থানা ভবনের পলেস্তারা

জেমস আব্দুর রহিম রানা: হস্তান্তরের এখনো ৪-৫ মাস বাকি। অথচ এখনই খসে খসে পড়ছে পলেস্তারা। দেওয়ালে দেখা দিয়েছে ফাটল। এমন চিত্র প্রায় ৯ কোটি টাকা

দেশকে আমরা আরো উন্নত করতে চাই

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের জন্য কাজ করে, দেশের কল্যাণে কাজ করে। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা কাজ করছি। দেশকে আমরা আরো উন্নত

অন্যের দোষ প্রকাশ করা কি গুনাহ?

অনেকে একজনের দোষ অন্যের কাছে বলে বেড়ায়। কারও ব্যক্তিগত এসব দোষ বা জীবনের কোনো ঘটনা অন্যের কাছে বলে বেড়ানো ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রকাশ করে

উপজেলা নির্বাচনে যশোরের মণিরামপুরে প্রার্থীর ছড়াছড়ি, দেড় ডজন নেতা-কর্মীর দোঁড়ঝাপ

জেমস আব্দুর রহিম রানা: দ্বাদশ জাতীয় সংসদের ডামাডোল হতে না হতেই দরজায় কড়া নাড়ছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচন কমিশন থেকে চলতি মাসে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের

‘আত্মসমর্পণ করতে যাচ্ছে সোমালিয়ার জলদস্যুরা’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বাংলাদেশের পতাকাবাহী জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে জিম্মি করে রাখা সোমালিয়ার জলদস্যুদের চারদিক থেকেই ঘিরে ফেলা হচ্ছে। ফলে দস্যুদের আত্মসমর্পণ ছাড়া আর কোনো পথ খোলা

শাহরাস্তিতে রাতের আঁধারে মসজিদে ভাংচুরঃ ১৭ টি পিলার ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা

রাফিউ হাসান হামজাঃ শাহরাস্তিতে রাতের আঁধারে মসজিদের ১৭ টি পিলারে ভাংচুর করেছে দূর্বত্তরা। মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে এ খবর জানাজানি হতেই ক্ষোভে ফেটে পড়ে মুসুল্লিরা।