আপনার জানার ও বিনোদনের ঠিকানা

অপরাধ বেড়েছে যশোরে, দেড় মাসে ১১ জন খুন

জেমস আব্দুর রহিম রানা: যশোরের অভয়নগরে যুবলীগ নেতা মুরাদ হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার রাত পৌনে ১০টার দিকে উপজেলার নওয়াপাড়া বেঙ্গল মিল গেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মুরাদকে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আকিকুল ইসলাম। মুরাদ হোসেন নওয়াপাড়া পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। তাঁর বাবার নাম সাহাবুদ্দিন।

নিহতের ভাই ফরহাদ রেজা বলেন, রোববার রাতে নওয়াপাড়া বাজার থেকে তরফদার পাড়ার বাড়ির দিকে হেঁটে যাচ্ছিলেন মুরাদ। পথে কবরস্থানের কাছে গেলে ওত পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তার ওপর হামলা চালায়। অস্ত্রের আঘাতে তিনি মারাত্মক জখম হন। মুরাদকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আগের দিন শনিবার সন্ধ্যায় যশোর শহরের রেলস্টেশন এলাকা ঘটে আরো একটি নৃশংস হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। এদিন সন্ধ্যায় দেখা যায় রেলস্টেশনের ২ নম্বর প্ল্যাটফর্মে তিন যুবক দৌড়ে দৌড়ে মো. জুম্মান (২৬) নামের একজনকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করছেন। একপর্যায়ে দৌড়াতে না পেরে মাটিতে পড়ে যান জুম্মান। পথচারীরা তাঁকে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। নৃশংস হত্যাকাণ্ডটি ঘটে ।

তার আগে শুক্রবার সকালে শহরতলির বালিয়াডাঙ্গা মানদিয়া জামে মসজিদের পেছন থেকে আগুনে পোড়া এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশ বলছে, হত্যার পর পেট্রল দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় ওই ব্যক্তির মুখ। অপরাধমূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের এ চিত্র যেন যশোরে নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। শহরে হঠাৎ চুরি, ছিনতাই, খুনোখুনি বেড়ে গেছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলছে, চলতি বছরের দেড় মাসে যশোরে ১০টি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রকাশ্যে ঘটছে খুনের ঘটনা। এর মূলে রয়েছে পক্ষ-বিপক্ষের দ্বন্দ্ব, আধিপত্য বিস্তার, মাদক কারবার, চাঁদাবাজি ও অস্ত্র বিক্রিসহ নানা কারণ। খুন ছাড়াও শহরে চাঁদাবাজি, বোমাবাজি, অর্ধডজন ছুরিকাঘাত, ছিনতাই ও চুরিসহ অসংখ্য অপরাধ সংঘটিত হয়েছে।

তবে যশোর পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) বেলাল হোসাইন বলছেন, অন্য সময়ের চেয়ে যশোরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি এখন অনেক ভালো।

যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, ‘যশোরে আইনশৃঙ্খলার অবনতির প্রধান কারণ কিশোর গ্যাং। বছরখানেক আগে কিশোর গ্যাংয়ের বিষয়ে প্রশাসনকে সতর্ক করেছিলাম। এখন সেই কিশোর গ্যাং ভয়বহ রূপ ধারণ করেছে। প্রায় দিনই হত্যাকাণ্ড, ছুরিকাঘাত, ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। এসব কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ করছেন আমাদের ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা। আর এসবের মূলে রয়েছে মাদক বেচাকেনা। দ্রুত এই কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ না করা গেলে যশোর শহরে বসবাস করা কঠিন হয়ে যাবে।’

পুলিশ জানিয়েছে, গত শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে যশোর রেলস্টেশন এলাকায় দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে মো. জুম্মান নামের এক যুবক নিহত হন। তিনি শহরের শংকরপুর এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। এলাকায় সন্ত্রাসীদের তালিকায় নিহত জুম্মানের নাম রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে ১৫টি মামলা রয়েছে।

শুক্রবার সকালে যশোর শহরতলির বালিয়াডাঙ্গা মানদিয়া জামে মসজিদের পেছনে একটি পরিত্যক্ত স্থান থেকে মহসীন হোসেন (৪০) নামের একজনের পোড়া লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি যশোর সদরের নুরপুর গ্রামের মছি মণ্ডলের ছেলে। পুলিশ বলছে, মহসীন সুদের কারবারের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ব্যবসায়িক দ্বন্দ্বে প্রতিপক্ষরা তাঁকে হত্যা করতে পারে। এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত বা কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

গত ২৬ জানুয়ারি যশোর শহরের বেজপাড়া টিবি ক্লিনিক মোড়ে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয় সোলায়মান হোসেনকে। এলাকায় মাদকের কারবার এবং আধিপত্য বিস্তার নিয়ে খুন হয়েছেন তিনি। সূত্রমতে, ঘটনার দিন ২৬ জানুয়ারি মাদক কারবারিরা প্রথমে সোহাগকে খোঁজ করেন। তাঁকে না পেয়ে তাঁর ভাই জসিম শিকদারকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন। জসিমকে ঠেকাতে গিয়ে হত্যাকাণ্ডের শিকার হন সোলায়মান। নিহত সোলায়মান শহরের টিবি ক্লিনিক এলাকার আব্দুল হকের ছেলে।

এদিকে শহরের বিভিন্ন স্থানে রাত নামলেই ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে সর্বস্ব খোয়াতে হয়েছে অনেক পথচারীকে। শুক্রবার শহরের সিটি কলেজপাড়ার বাসিন্দা শ্রমিক ইউনিয়নের ইজিবাইকচালক সুশান্ত কুমারকে ছুরিকাঘাত করেন ছিনতাইকারীরা। এ সময় ইজিবাইকটিও ছিনিয়ে নেন তাঁরা।

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) যশোরের সভাপতি অধ্যক্ষ শাহীন ইকবাল বলেন, যশোর শহরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির নজিরবিহীন অবনতি ঘটেছে। শহরের নিরাপত্তা নিয়ে সাধারণ নাগরিকেরা উদ্বিগ্ন। কিশোর গ্যাংয়ের তৎপরতাও বেড়েছে।

যশোর পুলিশের মুখপাত্র বেলাল হোসাইন বলেন, অন্য সময়ের চেয়ে যশোরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি এখন অনেক ভালো। যেসব হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে, তা পারিবারিক কলহের জেরে। হত্যাকাণ্ডের পর জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। দফায় দফায় পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

 

Facebook
Twitter
WhatsApp
Pinterest
Telegram

এই খবরও একই রকমের

এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য জরুরী নির্দেশনা’

নিজস্ব প্রতিবেদক: এ বছর এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি বাংলা ১ম পত্র দিয়ে শুরু হবে। শিক্ষা বোর্ডের রুটিন অনুযায়ী পরীক্ষা শেষ হবে একই

জাপানের ১২৫০ বছরের ইতিহাসে ‘নগ্ন উৎসবে’ প্রথমবারের মতো অংশ নিলেন নারীরা’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রতি বছর ফেব্রুয়ারি মাসে জাপানের হনশু দ্বীপে ‘হাডাকা মাতসুরি’ নামে এক উৎসব মহা সমারোহে পালিত হয়। এই উৎসব ‘নগ্ন পুরুষ উৎসব’ বা ‘নেকড

মৌসুম পরিবর্তনে বাড়ে অসুস্থতা, জরুরি সতর্কতা’

ঠিকানা টিভি ডট প্রেস: ষড়ঋতুর দেশে বছরজুড়েই বদলাতে থাকে পরিবেশ, আবহাওয়া। কখনো তপ্ত রোদ, কখনো কুয়াশা, কখনো বৃষ্টি-বরষা। মৌসুমের পালা বদলে পরিবর্তন হয় শারিরীক-মানসিক পরিস্থিতি।

‘চালের দাম নিয়ন্ত্রণে বৃহস্পতিবার সারাদেশে অভিযান’

বাংলা পোর্টাল: চালের দাম নিয়ন্ত্রণে আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি’) থেকে ৮ বিভাগে অভিযান চালানো হবে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। এ সময় কোনো মজুদ

যে মায়ের জন্য মোস্তাকিম গ্রেপ্তার, সেই মা আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক: ‘আমার ছেলে অপরাধী হলে মেনে নিতাম। ডায়ালাইসিস ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদ করতে গিয়ে ছেলেকে কারাগারে যেতে হলো। ছেলের মুক্তি না হলে আমাকেও কারাগারে নিয়ে

‘নির্বাচনে পিটিআই এর বাজিমাত, এবার আসছে নতুন কৌশল’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে এবার বাজিমাত করেছে ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ(পিটিআই) নির্বাচনে সবাইকে ছাড়িয়ে ৯৭ আসন পেয়েছে দলটির সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। কিন্তু এরপরও